ভিন্ন ধারার ইসলাম প্রচারক— ডা. জাকির নায়েক

অথর- টপিক- /লিড স্টোরি

গ্রেট প্রিচার অব ইসলাম— ০১


ইসলাম শ্রেষ্ঠ ধর্ম। কুরআনে এই কথা স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে। ইসলামকে অসহনশীল হিসেবে তকমা দেয়া হয়, এটা আসলেই তাই, কিন্তু তা দুর্নীতি, বৈষম্য, অবিচার, ব্যাভিচার, মাদক এবং সকল খারাপ বিষয়বস্তুর প্রতি। ইসলাম হল সবচেয়ে “সহনশীল” ধর্ম, যতক্ষণ পর্যন্ত মানুষের মূল্যবোধের প্রতি সমর্থন ঠিক থাকে। এমনটাই বলেন ডা. জাকির নায়েক।

ডা. জাকির নায়েক। তিনি বর্তমান বিশ্বের অন্যতম একজন ইসলাম ধর্মের প্রচারক। মানুষকে বিভিন্নভাবে ধর্মের পথে আহ্বান করাই তার কাজ। কখনো হয়তো তিনি বিভিন্ন ধর্মতত্ত্বের ব্যাখ্যা করে বা বিভিন্ন ধর্মের তুলনামূলক বিশ্লেষণের মাধ্যমে ইসলামের অধিকতর গ্রহণযোগ্যতা প্রতিষ্ঠা করে মানুষকে ইসলামের পথে আহ্বান করছেন। আবার কখনো হয়তো কুরাআন হাদিসের আলোকে মানুষকে সঠিক পথের দিকে আহ্বান করছেন। থমাস ব্লম হানসেন লিখেছেন যে, ডা. জাকিরের ধর্মপ্রচার কর্মকা- মুসলিমদের মাঝে তাকে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয় করে তুলেছে। তার আলোচনার বিষয়বস্তুগুলোর মধ্যে কয়েকটি হল, “ইসলাম ও আধুনিক বিজ্ঞান”, “ইসলাম ও খ্রিস্টধর্ম”, এবং “ইসলাম ও ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ”।

জন্ম ও শিক্ষাকার্যক্রম : ১৯৬৫ সালের ১৮ অক্টোবর ভারতের মহারাষ্ট্রের মুম্বাইয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তার মূল নাম হচ্ছে, জাকির আবদুল করিম নায়েক। তিনি মুম্বাইয়ের সেন্ট পিটার’স হাই স্কুল (আই.সি.এস.ই) থেকে মাধ্যমিক এবং চেল্লারাম কলেজ, মুম্বাই থেকে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা লাভ করেন। এরপর টপিওয়ালা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ, নায়ের হসপিটাল, মুম্বাই থেকে পড়াশুনার পর মুম্বাই ইউনিভার্সিটি থেকে চিকিৎসা শাস্ত্রে ডিগ্রি অর্জন করেন।

কর্মজীবন : তিনি একজন ভারতীয় উপমাদেশের ইসলামী চিন্তাবিদ, ধর্মপ্রচারক, বক্তা ও লেখক। তিনি ইসলাম ও তুলনামূলক ধর্মতত্ত্ব বিষয়ে কাজ করেন। তিনি “ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশন” নামক একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা যেটা পিস টিভি নেটওয়ার্ক পরিচালনা করে থাকে। আর এর মাধ্যমেই তার বক্তৃতা প্রায় দশ কোটি দর্শকের নিকট পৌঁছে যায়। তিনি টেলিভিশনভিত্তিক-ধর্মপ্রচারণার রকস্টার এবং আধুনিক ইসলামের একজন পৃষ্ঠপোষক। অন্যান্য ইসলাম ধর্মপ্রচারকদের সাথে জাকির নায়েকের ভিন্নতা হল, তার বক্তৃতাগুলো পারস্পারিক আলাপচারিতা ও প্রশ্নোত্তরভিত্তিক হয়ে থাকে। তিনি অধিকাংশ সময় ইংরেজি ভাষায় বক্তৃতা প্রদান করেন। এছাড়াও তিনি মুম্বাইয়ের ইসলামিক ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এবং ইউনাইটেড ইসলামিক এইডের প্রতিষ্ঠাতা, যা দরিদ্র ও অসহায় মুসলিম তরুণ-তরুণীদের বৃত্তি প্রদান করে থাকে।

বিভিন্ন সম্মেলনে অংশ গ্রহণ : ২০০৪ সালে জাকির নায়েক ‘ইসলামিক ইনফরমেশন অ্যান্ড সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক অফ অস্ট্রেলিয়া’-এর আমন্ত্রণে মেলবোর্ন ইউনিভার্সিটিতে বিতর্ক করেন ‘‘শুধু ইসলামই নারীকে সমতা দেয়’’-এ বিষয়ে । তিনি এই অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করে বলেন যে, পশ্চিমা পোষাক মেয়েদের ধর্ষণের অন্যতম একটি কারণ। কেননা এই প্রশাক নারীদেরকে পর-পুরুষের কাছে আকর্ষণীয় করে তোলে। এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে দ্য এজ পত্রিকার সুশি দাস মন্তব্য করেন, জাকির নায়েক ইসলামের উপদেশের ও আত্মিক শ্রেষ্ঠত্বের উচ্চ প্রশংসা করেন এবং পশ্চিমা বিশ্বে সাধারণ ভাবে যে বিশ্বাস দেখা যায় তাকে ব্যাঙ্গ করেন। ২০১৪ সালে, নায়েক গাম্বিয়ার রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া জাম্মেহর আমন্ত্রণে গাম্বিয়া সফর করেন। সেখানে ১১-২২ অক্টোবরের মধ্যে তিনি চারটি বক্তৃতা প্রদান করেন। বক্তৃতাগুলো গাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, প্যারাডাইস সুটস হোটেল, কানালাই এবং কলইয়ের কাইরাবা বিচ হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়। রাষ্ট্রীয় ক্যাবিনেট মন্ত্রীগণ, ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ, ছাত্রছাত্রী এবং সহস্র দর্শক তার বক্তৃতা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে। তিনি রাষ্ট্রপতি ও গাম্বিয়া সুপ্রিম ইসলামী কাউন্সিলের সঙ্গে পৃথক সাক্ষাৎ করেন এবং গাম্বিয়ার ইমামদের সঙ্গে একটি ইসলামী আলোচনা সভায়ও অংশ নেন।

দেশে দেশে নিষিদ্ধ জাকির নায়েক : যুক্তরাজ্যে ও কানাডায় ডা. জাকির নায়েককে ২০১০ সালের জুন মাসে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। মুসলিম কানাডিয়ান কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতা তারেক ফাতাহ জাকির নায়েকের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে সেদেশের সাংসদের সতর্ক করার পর কানাডায় তার প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়। লন্ডন এবং শেফফিল্ডে তার বক্তৃতা আয়োজনের পর স্বরাষ্ট্র সচিব থেরেসা মে তার যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে তার অবস্থান : ইসলামী সন্ত্রাসবাদ মিডিয়ার সৃষ্টি। প্রকৃত পক্ষে মুসলমানদের এমন হওয়া উচিত যেন তাদেরকে দেখলে সমাজবিরোধী লোকদের মাঝে ত্রাসের সৃষ্টি হয় এবং এরূপ হলে প্রত্যেক মুসলমানকে একজন সন্ত্রাসী হওয়া দরকার । টাইম পত্রিকা এই উক্তিকে “নিজবুল্লাহ জাহির সন্ত্রাসী কর্মকা-ের অনুপ্রেরণা” বলে ইঙ্গিত করলে জাকির নায়েক বলেন, আমি সবসময়ই সন্ত্রাসবাদকে দোষারোপ করি, কারণ কুরআনের নির্দেশনা অনুযায়ী, কেউ যদি একজন নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করে তবে সে যেনো পুরো মানবজাতিকে হত্যা করলো। তিনি হিটলারকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসী হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, সে মুসলিম না হয়েও বিশ্বের সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসী কারণ সে প্রায় ষাট লক্ষ ইহুদিকে হত্যা করেছিল।

মানুষকে কোনো কারণ ছাড়া হত্যা করার বিষয়ে আপনার দৃষ্টিভঙ্গি কি এমন এক প্রশ্নের উত্তরে ডা. জাকির নায়েক বলেন, পবিত্র কুরআনে বিষয়টি স্পষ্ট করে বলেছে, কেউ যদি নিরপরাধ একটি মানুষকে হত্যা করে, হোক সে মুসলিম বা অমুসলিম, এটা এমন যে সে পুরো মানবতাকে হত্যা করলো। অতএব কিভাবে একজন মুসলিম কোন নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করতে পারে?

এছাড়া আত্মঘাতী বোমাহামলা সম্পর্কে ডা. জাকির নায়েককে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন যে, ইসলামে এর অনুমতি আছে, এবং আরও বলেন নিরপরাধ মানুষকে যদি হত্যা করা হয় তবে এটি হারাম। কিন্তু আত্মঘাতী বোমাহামলা যদি যুদ্ধকৌশল হিসেবে ব্যবহৃত হয় তবে এটি বৈধ হতে পারে।

সম্মাননা-অর্জন : দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের ‘‘সবচাইতে শক্তিশালী ১০০ ভারতীয় ২০১০’’ তালিকায় জাকিরের অবস্থান ৮৯তম। ২০০৯ সালে তার অবস্থান ছিলো ৮২তম। প্রাভেন স্বামীতে জাকিরকে বলা হয়, ভারতে সবচাইতে বেশি প্রভাবশালী সালাফি ব্যাখ্যাকারী। সঞ্জিভ ভুট্টোর মতে, তিনি ইসলামের একজন কর্তৃত্বপরায়ণ ব্যক্তি হিসেবে স্বীকৃত, কিন্তু তিনি অন্য ধর্মের ওপর নেতিবাচক মন্তব্যকারী হিসেবে খ্যাত।এছাড়াও ১৭ দুবাই আন্তর্জাতিক পবিত্র কুরআন পুরস্কার জাকির নায়েককে বছরের ইসলামী ব্যক্তিত্ব হিসেবে নামকরণ করে।

পুরষ্কার বা সম্মাননার সাল পুরষ্কার বা সম্মাননার নাম পুরষ্কার প্রদানকারী সংস্থা বা সরকার
২০১৩ ইসলামিক পারসোনালিটি অব ২০১৩ শাইখ মোহাম্মাদ রাশিদ আল মাখতুম এ্যাওয়ার্ড ফর ওয়ার্ল্ড পিস
২০১৩ ডিস্টিংগুইশড ইন্টারন্যাশনাল পারসোনালিটি এওয়ার্ড আজম, টুয়ানকু আব্দুল হালিম মুয়াদজাম শাহ, মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রপ্রধান
২০১৩ শারজাহ এওয়ার্ড ফর ভলান্টারি ওয়ার্ক সুলতান বিন মোহাম্মেদ আল কাশিমি, শারজাহর শাসক
২০১৪ ইন্সাইনিয়া অব দ্য কমান্ডার অব দ্য ন্যাশনাল অর্ডার অব দ্য রিপাবলিক অব দ্য গাম্বিয়া গাম্বিয়ার রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া জাম্মেহ
২০১৪ অনারারি ডক্টরেট (ডক্টর অব হিউম্যান লেটারস) গাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়
২০১৫ বাদশাহ ফয়সাল আন্তর্জাতিক পুরস্কার সৌদি আরব

তথ্যসূত্র 


১. উইকিপিডিয়া

২. প্রিয়.কম

৩. দ্য মুসলিম ৫০০


 

আগাগোড়া মাদরাসায় পড়ুয়া একজন মানুষ আমি। লেখালেখি এবং সাংবাদিকতার উচ্চ আকাশে উড়ার স্বপ্ন দেখি। সকাল, দুপুর এবং রাত গড়িয়ে ব্যস্ত থাকতে ভালোবাসি লেখালেখিতেই। অন্যতম শখ ইংরেজিতে ভালো কিছু করা। এর প্রস্তুতিস্বরুপ ইংরেজি পড়াতে ব্যয় করছি আমার উল্লেখযোগ্য একটি সময়। দ্য সুলতানের সাথে লিখছি অতিথি লেখক হিসেবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*

লেটেস্ট ফরম

গো টু টপ