প্রখ্যাত ইউনানী চিকিৎসক ও রাজনীতিবিদ হাকিম আজমল খান

অথর- টপিক- /সুলতান স্টোরি

আজমল খান (বা হাকিম আজমল খান) (১৮৬৮–১৯২৭) কেবল একজন একজন ভারতীয় চিকিৎসক ছিলেন না, একজন রাজনীতিবিদ ও স্বাধীনতা সংগ্রামী হিসেবে তিনি উপমহাদেশের ইতিহাসে ভাস্বর হয়ে আছেন ।


তাকে “মসিহায়ে হিন্দ” (ভারতের সুস্থকারক) এবং “মুকুটোবিহীন রাজা” বলা হতো । বলা হতো যে তিনি রোগীর চেহারা দেখে রোগ বুঝে নিতে পারতেন। শহরের বাইরে যেতে হলে তিনি ১০০০ রুপি নিতেন।


যদিও দিল্লীতে তিবিয়া কলেজ স্থাপনের কারণে তাকে বিশ শতাব্দীতে ভারতে ইউনানি চিকিৎসার পুনর্জাগরণের কৃতিত্ব দেয়া হয় । মহাত্মা গান্ধীর সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিলো ।

আজ ২৮ ডিসেম্বর ১৯২৭ সালের এই দিনে তিনি মৃত্যু বরণ করেন ।  তিনি অসহযোগ আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন এবং খিলাফত আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন।  ১৯২১ সালে গুজরাটের আহমেদাবাদে অনুষ্ঠিত ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের অধিবেশনে তিনি দলের পঞ্চম মুসলিম প্রেসিডেন্ট হন।হাকিম আজমল খান জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতমও।  ১৯২০ সালে তিনি এর প্রথম চ্যাণ্সেলরও ছিলেন তিনি এবং ১৯২৭ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি এই পদে বহাল ছিলেন। হাকিম আজমল খান ১৮৬৮ সালে (১৭ শাওয়াল ১২৮৪ হিজরি) জন্মগ্রহণ করেন। তার দাদাও হাকিম শরিফ খান মুঘল সম্রাট দ্বিতীয় শাহ আলমের চিকিৎসক ছিলেন। তিনি ছিলেন শরিফ মঞ্জিল প্রতিষ্ঠাতা । আজমল খান শৈশবে তিনি প্রথাগত ইসলামি জ্ঞান অর্জন করেন এবং আরবি ও ফারসি শেখেন। এরপর দিল্লীর সিদ্দিকি দাওয়াখানার হাকিম আবদুল জামিলের তত্ত্বাবধানে তিনি তার ইউনানি শিক্ষা সমাপ্ত করেন। এরপর তিনি রামপুরের নবাবের চিকিৎসক নিযুক্ত হন। তাকে “মসিহায়ে হিন্দ” (ভারতের সুস্থকারক) এবং “মুকুটোবিহীন রাজা” বলা হতো । বলা হতো যে তিনি রোগীর চেহারা দেখে রোগ বুঝে নিতে পারতেন। শহরের বাইরে যেতে হলে তিনি ১০০০ রুপি নিতেন। তবে রোগী যদি দিল্লীতে আসে তবে তার সামাজিক অবস্থা বিবেচনা না করে বিনামূল্যে চিকিৎসা করতেন।

 

আজমল খান তার সময় ভারতের স্বাধীনতায় অবদান রাখা ব্যক্তিদের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব । স্বাধীনতা, জাতীয় ঐক্য ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ক্ষেত্রে তার অবদান অতুলনীয় । চিকিৎসা থেকেই তিনি তার মনোযোগ রাজনীতির দিকে নিয়ে আসেন। এসময় তিনি উর্দু সাপ্তাহিক ‘আকমল-উল-আখবার’-এ লেখা শুরু করেন। ১৯০৬ সালে শিমলায় ভারতের ভাইসরয়ের সাথে সাক্ষাত করা মুসলিম দলে তিনি নেতৃত্ব দেন। প্রতিনিধিদল কর্তৃক লিখিত মেমোরেন্ডাম ভাইসরয়কে উপস্থাপন করা হয়। পরের বছর ১৯০৬ সালের ৩০ অক্টোবর ঢাকায় নিখিল ভারত মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠায় তিনি উপস্থিত ছিলেন। অনেক মুসলিম নেতা গ্রেপ্তারের মুখোমুখি হলে তিনি সাহায্যের জন্য গান্ধীর দিকে অগ্রসর হন এবং এর মাধ্যমে খিলাফত আন্দোলনে মহাত্মা গান্ধী ও অন্যান্য মুসলিম নেতা যেমন আবুল কালাম আজাদ, মাওলানা মুহাম্মদ আলি, মাওলানা শওকত আলিকে ঐক্যবদ্ধ করেন। এছাড়া হাকিম আজমল খান ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস, নিখিল ভারত মুসলিম লীগ ও নিখিল ভারত খিলাফত কমিটির প্রধান হওয়া একমাত্র ব্যক্তি।

১৯২৭ সালের ২৯ ডিসেম্বর হাকিম আজমল খান হৃদযন্ত্রের সমস্যাজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুর আগে তিনি তার সরকারি উপাধি ত্যাগ করেন। তার অনেক ভারতীয় অনুসারী তাকে মসিহুল মুলক (জাতির সুস্থকারক) বলে উপাধি দেয়।

তথ্যসূত্র
১. Hakim Ajmal Khan, the versatile genius, by Mohammed Abdur Razzack. Central Council for Research in Unani Medicine, Ministry of Health & Family Welfare, Govt. of India, 1987.
২. Hakim Ajmal Khan by Zafar Ahmed Nizami, Publications Division, Ministry of Information and Broadcasting, Govt. of India, 1988.
৩. Hakim Ajmal Khan(Indian freedom fighters series), by Shri Ram Bakshi. Anmol Publications, 1996. ISBN 81-7488-264-2.
৪. Hakim Ajmal Khan (Hindi, Urdu and English Version) by Hakim Syed Zillur Rahman, National Book Trust, Government of India, New Delhi, India, 2004.
৫. Hameed, A., Institute of History of Medicine, Medical Research (New Delhi, India). Dept. of History of Medicine, Science (১৯৮৬)।
৬. https://www.islamicfinder.org/islamic-date-converter/…
৭. http://www.jmi.ac.in/AjmalKhan.htm



 

দ্য সুলতান- এটি দ্য সুলতান.কমের একটি অফিসিয়াল আইডি। যাদের নামে কোনো আইডি দ্য সুলতানে নেই, তাদের নাম লেখার মাঝে ব্যবহার করে আমরা সাধারণত এই আইডির মাধ্যমে তাদের লেখাগুলো দ্য সুলতান.কমে প্রকাশ করে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*

লেটেস্ট ফরম

গো টু টপ