Daily archive

March 24, 2017

বাংলাদেশের বাজারে অপো সেলফি এক্সপার্ট এফ৩ প্লাস

অথোর- টপিক- প্রডাক্টস টক


বাংলাদেশের বাজারে আনুষ্ঠানিকভাবে উন্মুক্ত করা হলো অপোর নতুন ডুয়েল সেলফি ক্যামেরাসহ সেলফি এক্সপার্ট এফ৩ প্লাস। রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে এই স্মার্টফোনটি উদ্বোধন করেন অপো বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নেভি ঈ, বাংলাদেশের ব্র্যান্ড ম্যানেজার ব্রুস লীসহ আরও অনেকে। নতুন এই সেলফি ফোন সম্পর্কে অপো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, এটা তাদের সর্ব প্রথম ১২০ ওয়াইড অ্যাঙ্গেলের ডুয়েল সেলফি ক্যামেরা। সম্মুখ ক্যামেরায় ১৬ মেগা পিক্সেল এবং পেছনের ক্যামেরা সনির কাস্টমাইজ করা আইএমএক্স৩৯৮ সেন্সরের ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে।

হ্যান্ডসেটটির ব্যাটারি ৪০০০ এমএএইচ যা ২৮৪ ঘন্টার বেশি সময় স্ট্যান্ডবাই ব্যবহার করা যাবে। ভিওওসি ফ্ল্যাশ চার্জের মাধ্যমে স্বাভাবিক ব্যাটারির তুলনায় এই ব্যাটারি চার গুন দ্রুত চার্জ হবে এবং ব্যবহারকারী মাত্র পাঁচ মিনিট চার্জ দিয়ে ২ ঘন্টা পর্যন্ত কথা বলতে পারবেন। অপোর এফ৩ প্লাস স্মার্টফোনে দ্রুতগতির একটি অক্টা-কোর প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। সেটটিতে রয়েছে ৪ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি রম। তবে মেমরি কার্ড ২৫৬ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশের বাজারে এটি বিক্রি শুরু হবে আগামী ১ এপ্রিল থেকে। আর আজ ২৩ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত হ্যান্ডসেটটির প্রি-অর্ডার নেবে প্রতিষ্ঠানটি।


কিপ রিডিং…

রাসূলুল্লাহ সা. ও মুক্তচিন্তা

অথোর- টপিক- অপিনিয়ন/বিলিভারস

বর্তমান বিজ্ঞানোত্তর বিশ্বে সমধিক আদৃত বিষয়সমূহের শীর্ষে সদর্পে অবস্থান করছে যে বিষয়টি, বলা যায় যে তাহলো মুক্তচিন্তা। শিল্পের উৎকর্ষ, সাহিত্যের সৌকর্য, বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রা, প্রজ্ঞার বিকাশ  ̶  এসবের মৌল গাঠনিক পদার্থ হলো মুক্তচিন্তা। মুক্তচিন্তার অভাব ব্যক্তিকে করে শৃংখলিত, বুদ্ধিকে করে অনুর্বর, সমাজ ও রাষ্ট্রকে ফেলে রাখে অকর্ষিত বেলাভূমে। মহানবী সা. পার্থিব ও ধর্মীয় উভয় পর্যায়ে গোটা মানব ইতিহাসে সফলতার সর্বোচ্চ চূড়া স্পর্শকারী ব্যক্তি ছিলেন। মাইকেল এইচ হার্ট তার ‘দ্য হানড্রেড’ গ্রন্থের প্রথম ও শীর্ষ ব্যক্তিত্ব মুহাম্মদ সা. সম্পর্কে এভাবেই মূল্যায়ণ করেছেন এবং বলেছেন, ‘He was the only man in history who was supremely successful on both religious and secular levels.’ (The Hundred:3)

ইতিহাসের সার্থকতম ব্যক্তি, যাকে আল্লাহ তাআলা চয়ন করেছেন বৈশ্ব্যিক দূত হিসেবে, তিনি মুক্তচিন্তার জ্যোতি-লাবণ্য ছড়িয়ে যাবেন আমৃত্য, শৃঙ্খলিত বুদ্ধির স্বাধীনতায় পক্ষে সংগ্রাম করে যাবেন জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত, এটাই ছিল স্বাভাবিক। বক্ষ্যমাণ প্রবন্ধে মহানবী সা. কীভাবে মুক্তচিন্তা চর্চা করেছেন, মুক্তচিন্তার পক্ষে সংগ্রাম করেছেন, মুক্তচিন্তাকে আশ্রয় দিয়েছেন, আদর করেছেন তা যৌক্তিক আলোচনায় তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে।

মুক্তচিন্তা (Free Thought) একটি আধুনিক পরিভাষা। এর মৌল সুর হলো, ‘জ্ঞান ও যুক্তির অনুপস্থিতিতে দাবিকৃত কোন মতকেই সত্য হিসেবে গ্রহণ বা বর্জনা না করা।’ এই সুরকে বিবেচনায় রেখে অগ্রসর হলে দেখা যাবে, মহানবী সা. হলেন প্রথম ব্যক্তি যিনি মুক্তচিন্তার প্রথম রাজপথ নির্মান করেছেন খোদ আল্লাহ তাআলার তত্তাবধানে। এর অন্যতম উদাহরণ, তাদানিন্তন পৃথিবীতে কর্তৃত্বরত সকল চিন্তা-জীবনধারা অশৈশব বর্জন করে অনুসন্ধান করেছেন তিনি নিটোল-অটুট সত্যের- (সূরা আদ্-দুহা)। আরব উপদ্বীপে হাজার বছরের লালিত-আদৃত পৌত্তলিকতার বিপক্ষে চলেছেন তিনি শিশুকাল থেকেই। তাইতো কখনো তাকে দেখা যায়নি কোনো প্রতিমার কাছে প্রার্থনা করতে, এমনকী প্রতিমার নামে জবাইকৃত কোনো পশুর মাংস খেতে, (বুখারী, কিতাবুয যাবাইহ ও ওয়াস্ সাইদ) । কিপ রিডিং…

গো টু টপ