Tag archive

ইমিগ্র্যান্ট

বিনাযুদ্ধে বাংলা ভাষাকে গ্রাস করেছে হিন্দি : আব্দুল গাফফার চৌধুরী


ভাষা আন্দোলনে উর্দুর বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়ী হলেও ‘বিনাযুদ্ধে হিন্দি ভাষা বাংলা’কে গ্রাস করে নিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন একুশের গানের রচয়িতা ও কলামনিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী। সম্প্রতি ঢাকার একটি বিয়েতে উপস্থিত হয়ে যে অভিজ্ঞতা হয়েছে তার উদাহরণ টেনে গাফফার চৌধুরী বলেন, “সেই বিয়েতে গিয়ে আমার মনে হয়েছে মুম্বাই শহরে আছি। একটি বাংলা গানও সেখানে শুনিনি।”


রোববার লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে আয়োজিত ভাষা শহীদ দিবসের আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, “ভাষা আন্দোলনে আমরা উর্দুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলাম কিন্তু বাংলাদেশে এখন বিনাযুদ্ধে হিন্দি ভাষা আমাদের গ্রাস করে নিয়েছে। “ইংরেজী শব্দের সাথে বাংলা ভাষায় ঢুকছে হিন্দি শব্দও। বাংলা ভাষাকে সরকারি ভাষা হিসাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে, কিন্তু কোথাও এই ভাষার ব্যবহার নেই। এই ভাষার ব্যবহার আছে টেলিভিশনে ও সাংবাদপত্রে।”

এটি একটি মনে রাখার মতো ঘটনা বলে উল্লেখ করে ভাষাসৈনিক গাফফার চৌধুরী বলেন, “যে বাংলাদেশ ২৪ বছর উর্দু ভাষার সাম্রাজ্যবাদী আক্রমণের বিরুদ্ধে লড়েছে, তারা বিনা যুদ্ধে হিন্দি ভাষার কাছে আত্মসমর্পণ করেছে, সম্পূর্ণ চলনে বলনে।” প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জুবায়ের। কিপ রিডিং…

বাংলাদেশ গ্লোবাল সামিটে সফল মানুষের মিলনমেলা

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে এত এত মেধাবী ও সফল মানুষ আছেন জানতামই না আগে। গত ১৯-২০ নভেম্বর কুয়ালালামপুরে হয়ে যাওয়া প্রথম বাংলাদেশ গ্লোবাল সামিটে উপস্থিত থেকে দেখলাম আমাদের দেশের কত সফল মানুষ প্রবাসে থাকেন। তাঁরা কেউ ১০ বছর, কেউ ২০ বছর, কেউ কেউ ৩০-৩৫ বছর ধরে দেশের বাইরে আছেন।

 যাঁরা ইউরোপ-আমেরিকায় থাকেন তাঁরা সবাই ওই দেশের নাগরিক। তারপরও তাঁদের মন কাঁদে মাতৃভূমি বাংলাদেশের জন্য। বাংলাদেশ, দেশের উন্নয়ন ও ষোলো কোটি মানুষের কথা বলার জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অনেক পথ পাড়ি দিয়ে পকেটের টাকা খরচ করে তাঁরা এসেছেন কুয়ালালামপুরে। তাঁরা সবাই কী সুন্দর করে অপার সম্ভাবনাময় বাংলাদেশের কথা ও বিউটিফুল বাংলাদেশের কথা বললেন। বাংলাদেশ নিম্নমধ্য আয়ের দেশ থেকে দ্রুত মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনার কথা বললেন। দেশের বিশাল তরুণ জনগোষ্ঠীকে জেনারেল থেকে সেমি স্কিল, সেমি স্কিল থেকে স্কিল বানানোর কথা বললেন। বাংলাদেশের আইটি খাত নিয়ে ও বিনিয়োগের কথা বললেন।

প্রবাসীদের অধিকারের কথা তো আছেই। ঢাকা বিমানবন্দরে নানাভাবে হয়রানির শিকার হওয়ার স্মৃতি তুলে ধরলেন অনেকে। মালয়েশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যের মতো শ্রমিক-নির্ভর দেশগুলোতে হাইকমিশন বা দূতাবাসের সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে হয়রানির কথাও উঠে এসেছে প্রবাসীর বক্তব্যে। বিভিন্ন বিষয়ের ওপর চারটি সেমিনারও দেখলাম। সেমিনার নানা সব কথামালা শুনলাম ভিন্ন ভিন্ন দেশের ভিন্ন ভিন্ন শহর থেকে আসা অভিজ্ঞ প্রবাসীদের মুখে। বাংলাদেশ থেকেও এসেছিলেন অনেকে। তাঁদের মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য ছিলেন আবেদ খান, মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, নঈম নিজাম, সাইফুল আলম, আহমেদ জোবায়ের, শ্যামল দত্ত, সাবির মোস্তফা, মাহমুদ হাফিজ ও পীর হাবিবুর রহমান প্রমুখ। কিপ রিডিং…

গো টু টপ